ঈদের খাবার হোক কোলেস্টেরলমুক্ত

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৭-০৬-২০ ০১:০৫:৩১

ঈদের সময় খাবার নিয়ে যথেষ্ট সচেতন হতে হবে। বিশেষ করে হৃদরোগীদের এ বিষয়ে একটু বেশি যত্নবান হতে হবে। কারণ এ সময় খাবারে কোলেষ্টেরলের উপস্থিতি থাকে মাত্রাতিরিক্ত। লিভারে উৎপন্ন কোলেস্টেরল রক্তের মাধ্যমে দেহের বিভিন্ন অঙ্গে সরবরাহ হয়ে থাকে।

দেখা গেছে, রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রার বৃদ্ধি ঘটলে সারা দেহের রক্তনালিতে স্থানে স্থানে স্তূপাকারে কোলেস্টেরল জমা হতে থাকে। এসব স্তূপকে অ্যাথেরোমা এবং জমা হওয়ার পদ্ধতিকে অ্যাথেরোসক্লেরোসিস বলা হয়। অ্যাথেরোমাকে সাধারণ ভাষায় প্ল্যাক বলা হয়। যার ফলে রক্তনালিতে ব্লক সৃষ্টি হয়। সুতরাং হার্ট ব্লকের জন্য রক্তের উচ্চমাত্রার কোলেস্টেরলকে দায়ী করা হয়ে থাকে। কিন্তু ঈদের খাবার মুখরোচক করতে গিয়ে নানা রকম ঘি ও মসলা ব্যবহার করা হয়। আর এতেই খাবারে কোলেস্টেরলের মাত্রা কয়েকগুণ বেড়ে যায়।

লিভার বা কলিজা কোলেস্টেরল উৎপন্ন করে থাকে। হজম প্রক্রিয়া ব্যবহারের জন্য পিত্তরস তৈরিতে কোলেস্টেরল কাঁচামাল হিসেবে ব্যবহৃত হয় বিধায় লিভার পিত্তরস তৈরির জন্য কোলেস্টেরল উৎপাদন করে থাকে। উৎপাদিত কোলেস্টেরলের কিছু অংশ দেহের বিভিন্ন অঙ্গের প্রয়োজন মেটাতে, লিভার রক্তের মাধ্যমে বিভিন্ন অঙ্গে কোলেস্টেরল সরবরাহ করে থাকে। প্রাণিজ খাদ্যের মাধ্যমে মানুষ কোলেস্টেরল গ্রহণ করে থাকে যা হজম শেষে রক্তে প্রবেশ করে বিভিন্ন অঙ্গে সরবরাহ হয়ে থাকে। কোলেস্টেরলকে বেশ কয়টি ভাগে ভাগ করা হয়। যাদের লিপিড নামেও অভিহিত করা হয়ে থাকে। যেমন—Total Cholesterol (TC) যার মাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার হার অনেক বেশি। Low density lipoprotein (LDL) যাকে সবচেয়ে ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। High density lipoprotein (HDL) এর মাত্রা বেশি থাকলে হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি হ্রাস পায় বলে একে বন্ধু কোলেস্টেরল বলা হয়। Triglyceride (TG) যা চর্বি জাতীয় খাদ্যে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে বিদ্যমান থাকে। রক্তে এর মাত্রার কিছুটা বৃদ্ধি ঘটলেও কোনো সমস্যা হয় না। তবে অত্যধিক পরিমাণে বৃদ্ধি ঘটলে হৃদরোগ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি বৃদ্ধি পায়। TC-এর স্বাভাবিক মাত্রা 200mg/dl-এর নিচে। 200mg/dl থেকে 250mg/dl পর্যন্ত মাত্রাকে ঐরময এবং 250mg /dl এর বেশি থাকলে তাকে ঠবৎু যরময বলে বিবেচনা করা হয়। LDL এর মাত্রা ১৫০সম/ফষ অথবা তার নিচে থাকা বাঞ্ছনীয়। যারা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে মাত্রা 100mg/dl এর নিচে রাখাই উত্তম। HDL-এর মাত্রা পুরুষদের ক্ষেত্রে 40mg/dl এবং মহিলাদের 50mg/dl এর উপরে থাকা বাঞ্ছনীয়। তাই ঈদের খাবার নিয়ে আমাদের আরও সচেতন হতে হবে।

ডা. এম শমশের আলী, সিনিয়র কনসালটেন্ট (কার্ডিওলজি) ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল,
কনসালটেন্ট, শমশের হার্ট কেয়ার এবং মুন
ডায়াগনস্টিক সেন্টার, শ্যামলী, ঢাকা।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : ১৭৬ বার

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   সাবেক মন্ত্রী এম কে আনোয়ারের ইন্তেকাল
  •   ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে চালু হচ্ছে ইসরায়েলি প্রযুক্তি
  •   পশুদের সেবাযত্নে অবসর কাটে আলোচিত নায়িকা অঞ্জুর
  •   আসলেই কি ছাত্রদের সঙ্গে একই হলে থাকতে চেয়েছিল ছাত্রীরা?
  •   বুধবার থেকেই বিপিএলের দলগুলোর অনুশীলন শুরু
  •   দার্জিলিং নয় তেঁতুলিয়া থেকেই দেখা যাচ্ছে এমন কাঞ্চনজঙ্ঘা
  •   হঠাৎ রেললাইনে ধাক্কা নারীকে!
  •   সেরা সুন্দরী হয়েও মুকুট হারিয়েছেন যাঁরা
  •   শ্রেণিকক্ষেই ছাত্রীর সঙ্গে সমকামিতা, অতঃপর...
  •   প্রেমিককে বাঁচাতে গিয়ে রেল লাইনে ঝাঁপ প্রেমিকার
  •   যানজট এড়াতে হঠাৎ পুলিশের মোটরসাইকেলে প্রতিমন্ত্রী!
  •   রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথ তার হাতব্যাগে ঠিক কত টাকা রাখেন!
  •   বাংলাদেশকে নিয়ে যা বললেন ডি কক
  •   এবার নারী থেরাপিস্টকে গেইলের কুপ্রস্তাব!
  •   ‘বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য বিপদ সংকেত’