অ্যাসপারগিলাস টুবিনজেনসিস ধংশ করবে প্লাস্টিক!

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৭-১০-০৯ ১০:১৯:৩৮

সিলেটভিউ ডেস্ক :: প্লাস্টিক নষ্ট হয় না, এটাই জানা ছিল এতদিন। কিন্তু এবার জানা গেল, প্লাস্টিককে ‘খেয়ে’ ফেলতে পারে বিশেষ এক ধরনের ছত্রাকও! তারা ভেঙে টুকরো টুকরো করে দিতে পারে প্লাস্টিক অণুগুলিকে বেঁধে রাখার বন্ড বা ‘হাত’ গুলিকে। তার ফলে ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এই দ্রব্যের অণুগুলি। কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই মাটিতে মিশে গিয়ে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে পারে সেই সব প্লাস্টিক, যারা ১০ লক্ষ বছরেও মাটিতে মিশে যায় না।
 
প্লাস্টিককে ‘বধ’ করার এমন একটি ছত্রাকের সন্ধান মিলেছে বলে দাবি করেছেন চাইনিজ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেসের একদল বিজ্ঞানী। পাকিস্তানের গবেষকদের সঙ্গে সম্মিলিত গবেষণা চালিয়ে ইসলামাবাদের আবর্জনার স্তূপ থেকে সেই প্লাস্টিক বিনাশী ছত্রাকের হদিস পেয়েছেন তারা। তাঁদের গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে পরিবেশ বিষয়ক আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান জার্নাল ‘এনভায়রনমেন্টাল পলিউশান’ এ।
 
গবেষকরা যে ছত্রাকটির হদিস পেয়েছেন, তার নাম অ্যাসপারগিলাস টুবিনজেনসিস। ছত্রাকটি জন্মায় মাটিতে। তবে গবেষণাগারে ওই ছত্রাককে প্লাস্টিকের ওপরেও জন্মাতে দেখেছেন গবেষকরা। এটি থেকে বেরিয়ে আসে এক ধরনের এনজাইম বা উেসচক, যা প্লাস্টিকের অণুগুলিকে বেঁধে রাখার বন্ডগুলিকে ভেঙে টুকরো টুকরো করে দেয়। আর সেটা করে অত্যন্ত দ্রুত গতিতে। ফলে কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই একটা প্লাস্টিক পুরোপুরি ক্ষয়ে গিয়ে মাটিতে মিশে যেতে পারে। এই প্রক্রিয়াতেই মরা গাছপালা বা প্রাণীদের জৈব বর্জ্যের ওপর বসে ছত্রাক তাদের নিশ্চিহ্ন করে দেয়।
 
গবেষণায় দেখা গেছে, প্লাস্টিকখেকো ছত্রাকটির বিভিন্ন মাধ্যমে আচার-আচরণে ভিন্নতা থাকে। তারা কতটা দক্ষতার সঙ্গে প্লাস্টিক অণুকে ভাঙতে পারবে, তা নির্ভর করে কোন মাধ্যমে আর কোন তাপমাত্রায় তাদের রাখা হচ্ছে তার ওপর। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের একটি সমীক্ষায় বলা হয়েছে, ২০১৪ সালে বিশ্বে প্লাস্টিক উত্পাদনের পরিমাণ ছিল ৩১ কোটি ১০ লক্ষ টন। যা ২০৫০ সালে হবে ১ হাজার কোটি ১২ লক্ষ ৪০ হাজার টন। এই পরিস্থিতিতে পরিবেশের স্বার্থে প্লাস্টিক বর্জ্য ধ্বংস করা জরুরি। সে ক্ষেত্রে প্লাস্টিকখেকো ছত্রাকরা আগামী দিনে কী ভূমিকা নিতে পারে, সেটাই এখন দেখার বিষয়।


সিলেটভিউ২৪ডটকম/০৯অক্টোবর২০১৭/ডেস্ক/আআ

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : ৯৫ বার

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   ছাতক ঝড়ের কবলে কৃষকের প্রাণহানি
  •   প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গার সাথে বাপসা সিলেট জেলা কমিটির মতবিনিময়
  •   এক্সেলসিয়র সিলেট টি-গার্ডেনস্ ফুটবল লীগ সম্পন্ন
  •   ওসমানীনগরে শিক্ষার্থীদের মধ্যে উপবৃত্তির নগদ অর্থ বিতরণ
  •   মানবাধিকার কমিশন সিলেট মহানগরের অভিষেক সম্পন্ন
  •   কমলগঞ্জে ধলাই নদীর পানি বিপদ সীমার উপরে, বাঁধ ভেঙ্গে প্লাবিত শরীফপুর
  •   কমলগঞ্জে ছাত্রলীগের সংবাদ সম্মেলনে কতিপয় ব্যক্তির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ
  •   সিলেট জেলা ইমাম সমিতির উপজেলা প্রতিনিধি সম্মেলন সম্পন্ন
  •   সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের শোক
  •   মানবসেবার সবচেয়ে উত্তম কাজ চিকিৎসা সেবা: অধ্যক্ষ ডা. মোর্শেদ
  •   এমসি কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী
  •   বড়লেখায় নব-দম্পতিকে নির্যাতনের অভিযোগ
  •   ‘দেশকে ভালবাসলে সমাজ শান্তিপূর্ণ হবে, দেশ এগিয়ে যাবে’
  •   বড়লেখায় ‘নাগরী লিপির নবযাত্রা’ প্রদর্শনী ও মতবিনিময়
  •   ছাত্রলীগ নেতা শাহিন ও আসিফের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতারের দাবীতে বিক্ষোভ
  • সাম্প্রতিক তথ্য-প্রযুক্তি খবর

  •   দেশেই মোবাইল ফ্যাক্টরি!
  •   চাঁদের মাটির নীচেও বাস করবে মানুষ: গবেষণা
  •   ফ্রি ওয়াই-ফাই ব্যবহার করছেন? সাবধান!
  •   এবার থেকে ফেসবুকে খবর পড়তে লাগবে টাকা
  •   পৃথিবীর যে ৭টি স্থান গুগল ম্যাপে খুঁজে পাবেন না!
  •   বিমানযাত্রীদের ডেটিংয়ের সুবিধা দেবে নতুন অ্যাপ
  •   ডুয়াল ডিসপ্লে-সংবলিত স্মার্টফোন আনল জেডটিই
  •   গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে যে প্রশ্নের উত্তর!
  •   ফেসবুকে ফেক অ্যাকাউন্ট বন্ধে আসছে 'ফেস স্ক্যান' পদ্ধতি
  •   এবার মোবাইলের ক্যামেরায় ধরা পড়বে ম্যালেরিয়া
  •   মকবুলের আবিষ্কার এক ধানে দুই চাল
  •   বিনা খরচে ঘুরে আসুন চাঁদ ও মঙ্গল গ্রহে!
  •   ‘নবম ধাপে আমাকে ঠোঁট কাটতে বলা হয়’
  •   ভুয়া খবর ইস্যুতে ফেসবুক, টুইটার ও গুগলকে তলব
  •   নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছে চীনা উপগ্রহ!