'যদি মন কাঁদে তুমি চলে এসো, চলে এসো এক বরষায়'

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৭-০৭-১৮ ০০:১৯:০৩

শামছুল হক মিলাদ :: লেখকরা লেখতে ভালোবাসেন, লেখা-লেখিতেই তাদের ধ্যান জ্ঞান। টানা লিখতে পারার অসম্ভব ক্ষমতা সব লেখকের হয়না। কিছুদিন লিখার পর অনেকেই থমকে দাঁড়ায়। লেখা-লেখির প্রতি গভীর অনুরাগ সবার তখন থাকে না। কিন্তু হুমায়ুন আহমেদের ছিলো। অনেক বেশি ছিলো। টানা ৪০ বছর বাংলা সাহিত্যে লিখে গেছেন। তার মধ্যে ৩০-৩৫ বছর ছিলেন তুঙ্গস্পর্শী জনপ্রিয়।  এতো লেখালেখির পর হুমায়ুন আহমদ বলতেন জীবন এতো ছোট কেনো।

শুধু লেখা-লেখি নয়, গান রচনায় দারুণ পারদর্শী ও ছিলেন হুমায়ুন আহমদ। নিজের নির্মিত প্রায় সব ছবিতেই হুমায়ুন আহমদ নিজের লেখা গান ব্যবহার করতেন। তার মধ্যে অন্যতম একটি ,\'যদি মন কাঁদে তুমি চলে এসো, চলে এসো এক বরষায়।\'

তুমি চলো এসো যদি মন কাঁদে, আমাদের মন কাঁদে তোমার জন্য। আরেকটা বর্ষা চলো গেলো ,নবধারা জলে ছায়ানট কিংবা পিচঢালা পথে তরুণ-তরুণীরা ভিজতে ভিজতে কাক ভেজা হয়ে গেলো। সবধারা জলে আত্নাশুদ্ধিতে তোমার লেখা গল্পের মতো করে অনেকেই শুদ্ধি হতে চাইলো। শুধু এই বর্ষায় তোমাকে পাওয়া গেলো না। সময়ের হিসেবে তোমায় ছাড়া এটি কততম বর্ষা? হিসেব কষতে চাই না, ভিতরটা যে ঢুকরে ওঠে।

জ্যেৎস্না হচ্ছে, নদীতে বান ডাকছে তুমি নেই ফিরবেনা আর কখনো এটাই সত্য -তবু মন কাঁদে তুমি ফিরো এসো এক বরষায়।

বাংলা সাহিত্যের প্রবাদ পুরুষ স্যার হুমায়ুন আহমদ, ১৯৪৮ সালের ১৩ ই নভেম্বর নেত্রকোণার মোহনগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। বাবার চাকরির সূত্রে ঘুরে বেরিয়েছেন সারা দেশ জুড়ে। ঘুরে বেরানোর মতো নামটা পরির্বতন করেছেন দ্রুত। পিতা ফয়জুর রহমান নিজের নামের সাথে মিল রেখে রাখলেন শামসুর রহমান, তারপর কাজল, সেখানে স্থায়ী হয়নি দ্রুত পরির্বতনে হলেন হুমায়ুন আহমদ। স্কুলে পড়ালেখার সময়ে এই নামটার প্রতি বিরাগ জন্মেছিলো হুমায়ুনের। কারণটা মোঘল সম্রাট হুমায়ুনের বারবার শের শাহর হাতে পরাজিত হওয়া। অবশ্যে পরিণত হওয়ার সাথে সাথে এসব আর ঘ্রাস করেনি থাকে।

বগুড়া জিলা স্কুল থেকে মেট্রিক এবং ঢাকা কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়নে অর্নাস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নর্থ ডাকোটা স্টেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পলিমার কেমিস্ট্রিতে পি. এইচ. ডি। পরবর্তীতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় দিয়ে কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করলে স্থায়ী হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হিসেবে।

সাহিত্য জগতে ডুবে থাকা এই মহান পুরুষ পরবর্তীতে অধ্যাপনা ছেড়ে ঝুঁকে পড়েন গল্প, উপন্যাস, নাটক, সায়েন্স ফিকশন, আর চলচ্চিত্রে।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : ৩৬৪ বার

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   সালমান শাহ হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন আজ
  •   কুলাউড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হ‌য়ে নির্মান শ্র‌মি‌কের মৃত্যু
  •   হত্যা ধর্ষণের বীভৎস বর্ণনা
  •   সুন্দরী প্রতিযোগিতায় রানার আপ বাংলাদেশের অনন্যা
  •   রাতের অফিসে দেহ ব্যবসা করি
  •   ‘ইয়াবা ডন’ কার্লোসের সহযোগী মন্ত্রীপুত্র, বান্ধবী চার মডেল!
  •   ‘কারো হাতে পায়ে ধরে বলিনি যে আমার গান শুনতে হবে’
  •   রুরাল টু আরবান'র উচ্চশিক্ষা ও ক্যারিয়ার গাইডলাইন বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত
  •   অভিনয়ে ফিরলেন কবরী
  •   মিয়ানমারের সেনা প্রশিক্ষণ বন্ধ করল ব্রিটেন
  •   কে এই বৌদ্ধ ভিক্ষু ফেইস অব টেরর?
  •   ফেসবুকে নিষিদ্ধ রোহিঙ্গা বিদ্রোহীরা
  •   রোহিঙ্গাদের জন্য দেড় কোটি ডলার দেবে সৌদি
  •   হানিপ্রীতের জন্য ব্যাকুল রাম রহিম
  •   তাহিরপুরে মেয়েকে আত্মহত্যা প্ররোচনার দায়ে মা-বাবা গ্রেফতার
  • সাম্প্রতিক ফিচার খবর

  •   মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি আর চুপ করে থাকবেন না
  •   ভাটির পুরুষ || শাকুর মজিদ
  •   এখনকার তরুণেরা প্রেম করছেন কম!
  •   বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়: একজন নিভৃতচারী কথাশিল্পী
  •   সিলেট ইসকন মন্দিরে একদিন...
  •   'মুসলমান হিসেবে চোখের পানি ধরে রাখতে পারছি না'
  •   শেখ হাসিনা, নোবেল শান্তি পুরস্কার ও পরিকল্পিত অপপ্রচার!
  •   ভা‌লো থেকো নী‌তির রাজনী‌তিক সৈয়দ মহসীন অালী
  •   ডেল কার্নেগির স্মরণীয় ৭টি উক্তি
  •   রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান কোন পথে?
  •   আমাদের সেরা ইউনিভার্সিটিগুলোর শিক্ষক-কর্মকর্তারা কি করে?
  •   সামাজিক বিয়েতে বাণিজ্যের হিসেব, প্রেমের বিয়ে হৃদয় সুখে ভরপুর
  •   অং সান সু চিকে লেখা খোলা চিঠি
  •   রোহিঙ্গা সমস্যার পরিণতি এবং আমাদের করণীয়
  •   ভগবান রাজনীশের যত কাণ্ড!