রোগী নয়, ডাক্তারের মানসিক টেস্ট দরকার

সিলেটভিউ টুয়েন্টিফোর ডটকম, ২০১৭-০১-০৮ ০০:১৭:১৩

মুনিরুদ্দীন আহমেদ :: আজকাল অনেকেই চিকিৎসকের কাছে যেতে ভয় পান। চিকিৎসকের কাছে গেলেই তাঁরা রোগীকে একগাদা ডায়াগনস্টিক টেস্ট বা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই রোগের সঙ্গে আদৌ সম্পর্কযুক্ত নয়।

তবে অনেক রোগের জন্য ডায়াগনস্টিক টেস্ট দরকার আছে। দুর্ভাগ্য হল, চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পর চিকিৎসক রোগীর চিকিৎসা শুরু করে দেন এবং অসংখ্য টেস্ট রিপোর্টসহ এক বা দুই সপ্তাহ পর আবার দেখা করতে বলেন। রোগী টেস্ট রিপোর্ট নিয়ে চিকিৎসকের কাছে গেলে দেখা যায়, টেস্ট রিপোর্ট চিকিৎসকের কাছে কোনো গুরুত্ব পায় না।

তাহলে এসব টেস্ট কেন? সাধারণ চিকিৎসক বা হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা রোগীর রোগ নির্ণয়ের জন্য যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরামর্শ দিয়ে থাকেন, তার দুই-তৃতীয়াংশই অপ্রয়োজনীয়। তার পরও চিকিৎসক অসংখ্য পরীক্ষা-নিরীক্ষার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কারণ, উন্নত বিশ্বে কোনো অঘটন ঘটলে রোগী যাতে চিকিৎসকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে না পারেন। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য, আধুনিক বিশ্বে এই নির্মম প্র্যাকটিসই চলে আসছে।

অনেক চিকিৎসক সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় করতে সক্ষম হওয়া সত্ত্বেও যত বেশি সম্ভব অপ্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষার আদেশ দিয়ে থাকেন। কারণ, চিকিৎসক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর সঙ্গে আত্মীক সম্পর্ক রয়েছে। চিকিৎসকরা ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো থেকে মোটা অঙ্কের কমিশন পেয়ে থাকেন । ডায়াগনস্টিক সেন্টারে করা এসব পরীক্ষা-নিরীক্ষার ফলাফল থেকে চিকিৎসকরা কী ধরনের সিদ্ধান্তে আসেন, তা নিয়েও বড় রকমের প্রশ্ন থাকে।

 কোনো পরীক্ষার ফলাফল স্বাভাবিক না হলে বুঝতে হবে, রোগীর সমস্যা আছে। সুতরাং সমস্যা মোতাবেক চিকিৎসা শুরু করা জরুরি হয়ে পড়ে চিকিৎসকের কাছে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, নর্মাল ভ্যালু বা স্বাভাবিক মানের সংজ্ঞা কী? রক্তচাপ, কোলেস্টেরল বা সুগার লেভেল কত হলে স্বাভাবিক কিংবা কত হলে অস্বাভাবিক হবে? এসব মান বহু ফ্যাক্টরের ওপর নির্ভরশীল, যা কোনো কোনো চিকিৎসক অনেক সময়ই ধর্তব্যের মধ্যে না নিয়েই চিকিৎসা শুরু করেন। ফলে অনেক ক্ষেত্রেই সুস্থ রোগীকে অসুস্থ করে তোলা হয়।

মেডিক্যাল টেস্ট বা প্যাথলজিক্যাল টেস্টকে আমরা যত বেশি বিশ্বাসযোগ্য বা প্রয়োজনীয় মনে করি, আসলে ততটা বিশ্বাসযোগ্য নয়, প্রয়োজনীয়ও নয়। পরীক্ষা-নিরীক্ষায় কিছু না পাওয়া সত্ত্বেও একজন মানুষ অসুস্থ বোধ করতে পারেন। আবার কেউ সুস্থ বোধ করলেও পরীক্ষা-নিরীক্ষায় অনেক তথাকথিত অস্বাভাবিক ফলাফল বেরিয়ে আসতে পারে, যা জানার পর তিনি মনস্তাত্ত্বিক অসুস্থতায় ভুগতে পারেন।

মনে রাখবেন, আপনার শরীর ভালো আছে বলে আপনি সুস্থ বোধ করছেন। আপনার শরীরে সম্ভবত কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা থাকলে তা আছে অনেক চিকিৎসকের মাথায়, প্রকৃত প্রস্তাবে, যার সত্যিকার ডায়াগনস্টিক টেস্ট ও চিকিৎসা প্রয়োজন। তবে চিকিৎসকদের মধ্যেও ব্যতিক্রম রয়েছে।

লেখক: অধ্যাপক, ক্লিনিকাল ফার্মাসি ও ফার্মাকোলজি বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : ৬৭৪ বার

শেয়ার করুন

আপনার মতামত দিন

সর্বশেষ খবর

  •   বিয়ানীবাজারে রোটারেক্ট জোনের সৌর বিদ্যুৎ ও পানির ফিল্টার বিতরণ
  •   সমাজসেবী জয়মতী রানী ঘোষের প্রয়াণে শোক প্রকাশ
  •   যে উপায়ে কমাতে পারেন ইলেকট্রিক বিল!
  •   ট্রাম্পবিরোধী আন্দোলনের প্রতীক হয়ে উঠছেন বাংলাদেশি মুনিরা
  •   অনলাইনে স্বামী নির্বাচনের আগে যা ভাবেন নারীরা
  •   বাজারে আসছে অল্পদামের দুর্দান্ত স্মার্টফোন!
  •   নাইটক্লাবে পারভেজ মোশাররফের নাচ নিয়ে পাকিস্তানে হইচই (ভিডিও)
  •   ইরাকের তেল লুট করতে চান ট্রাম্প
  •   সাকিব-তামিমের ওপর ক্ষুব্ধ বিসিবি প্রেসিডেন্ট!
  •   শচীন কন্যা এই সুন্দরীই ঝড় তুলতে পারেন বলিউডে!
  •   স্যুটকেসে ভারতীয় নারীর লাশ, স্বামী গ্রেপ্তার
  •   সানির কেলেঙ্কারির দায় নেবে না বিসিবি
  •   অস্ত্র হাতে ফেসবুক লাইভে যুবলীগ নেতা (ভিডিও)
  •   ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভের নেপথ্য নারী
  •   এবার অদৃশ্য অস্ত্রেই শত্রু নিধন করবে রাশিয়া!
  • সাম্প্রতিক ফিচার খবর

  •   যে উপায়ে কমাতে পারেন ইলেকট্রিক বিল!
  •   ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক তসলিমা নাসরিন
  •   পুরুষদের প্রতি যে কোন নারীকে আকৃষ্ট করাবে ‘লাভ স্প্রে’
  •   নারীদের যে সুগন্ধি ব্যবহারে পুরুষের আগ্রহ
  •   ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুরের লেখা বই আসছে বইমেলায়
  •   গায়ে কেন ছাই মাখেন সাধুরা
  •   অসমাপ্ত কবিতা
  •   হানিমুনকে কেন 'হানিমুন' বলা হয়!
  •   পুরুষের আঙুলই বলে দেবে নারীদের প্রতি তার মনোভাব!
  •   যেসব পুরুষ টাকার বিনিময়ে শরীর চায়
  •   প্রিয় বানরেরা, আপনারা হিজরত করুন...
  •   হঠাৎ কুকুর তাড়া করলে যা করবেন
  •   প্রকাশ পেল আহমদ বশীরের মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক উপন্যাস
  •   শীতের সকাল: যেখান থেকে প্রথম শীত অনুভব!
  •   'মাঝি নৌকা ভিড়াও- আমি আবদুস সামাদ আজাদ'